গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ ও দৃঢ় নেতৃত্বে বাংলাদেশ বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ সংকট থেকে সফলভাবে উত্তোরণ করতে পেরেছে, যা আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বিশ্বব্যাপী একজন আদর্শ পথিকৃৎ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। অপরদিকে, কোভিড-১৯ মহামারি প্রতিরোধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ও আহ্বানে বাংলাদেশের যুবারাও তাঁদের অদম্য মানসিকতাকে তুলে ধরে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমের সাথে নিজেদেরকে সম্পৃক্ত করেছে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে তাঁদের এই অনন্য মানবিক অবদানের স্বীকৃতি দিতে ‘ঢাকা ওআইসি ইয়্যুথ ক্যাপিটাল ২০২০’-এর অধীনে প্রথমবারের মত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নামে ‘শেখ হাসিনা ইয়্যুথ ভলান্টিয়ার অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করা হয়েছে, যার মাধ্যমে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় কর্তৃক তাঁদেরকে একক ও দলীয়ভাবে বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননা প্রদান করা হবে।

ভলান্টিয়ার অ্যাওয়ার্ড বিষয়

মোস্ট ইন্সপায়ারিং ভলান্টিয়ার স্টোরি

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তি বা সংস্থাকে যারা করোনাকালীন সময়ে স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম নিয়ে সবচেয়ে অনুপ্রেরণামূলক ঘটনা বা গল্প জমা দেবেন। এক্ষেত্রে গল্পটি নিজের বা নিজেদের হতে পারে, অথবা জানাশোনা কারও বা কোন সংস্থারও হতে পারে। তবে গল্পটি হতে হবে ৭০০-১০০০ শব্দের মধ্যে।

কর্পোরেট সাপোর্ট ইন ভলান্টারি ইয়্যুথ অ্যাক্টিভিটিস

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে কর্পোরেট/ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানদের যারা করোনাকালীন সময়ে তরুণদের স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমে আর্থিক সহযোগিতা এবং সমর্থন প্রদান করেছে।

ইনভায়রনমেন্টাল রেসপন্স

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তি বা সংস্থাকে যারা করোনাকালীন সময়ে পরিবেশ-প্রকৃতি এবং জীববৈচিত্র্য রক্ষায় স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।

মোস্ট ইমপ্যাক্টফুল ইনিশিয়েটিভ

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তি বা সংস্থাকে যারা করোনাকালীন সময়ে নিজেদের সামর্থ্য এবং সম্পদ (রিসোর্স) অনুযায়ী স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি প্রভাব রাখতে পেরেছেন।

মোস্ট ইমপ্যাক্টফুল মিডিয়া পার্সোনেল

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে তরুণ সাংবাদিক বা মিডিয়া কর্মীদের যারা করোনাকালীন সময়ে চরম ঝুঁকি নিয়ে তরুণদের নানাবিধ স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম প্রচারের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব বিস্তার করেছেন।

অ্যাক্ট অব ব্রেভারি

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তি বা সংস্থাকে যারা করোনাকালীন সময়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সরাসরি করোনা আক্রান্তদের সংস্পর্শে গিয়েছেন এবং স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে করোনা আক্রান্ত মৃত ব্যাক্তিদের কবর দেয়ার মত নানাবিধ সংবেদনশীল কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

আউটস্ট্যান্ডিং ভলান্টারি অর্গানাইজেশন

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে নিবন্ধিত যুব সংগঠনকে যারা করোনাকালীন সময়ে স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখতে পেরেছেন।

বেস্ট ইনোভেটিভ আইডিয়া

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তি বা সংস্থাকে যারা করোনাকালীন সময়ে স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনায় সবচেয়ে উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে এসেছেন।

কমিউনিটি লিডারশিপ অ্যান্ড সার্ভিস

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে তাঁদেরকে যারা নেতৃত্ব দিয়ে নিজ নিজ কমিউনিটি বা সম্প্রদায়, বিশেষ করে প্রান্তিক সম্প্রদায়কে সমর্থন করেছে এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনা করেছে।

সার্ভিস এক্সেলেন্স

এই পুরষ্কারটি প্রদান করা হবে সেই সমস্ত ব্যাক্তিকে যারা অন্য পেশায় নিযুক্ত থেকেও করোনাকালীন সময়ে স্বেচ্ছাসেবীর ভূমিকা পালন করে উদাহরণ সৃষ্টি করার মত কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

রেজিস্ট্রেশন ফর্ম